Monday, April 22, 2024

Alexander the Great : কিংবদন্তি সমরকৌশলী এক সম্রাট,মাত্র ৩২ বছর বয়সেই হয়েছিলেন বৃহৎ সাম্রাজ্যের অধিপতি

দ্বিতীয় পর্ব

পারস্য সাম্রাজ্যের রেজিমেন্ট:

খ্রিস্টপূর্ব ৩৩৪ বিসি-তে সিকন্দরের সেনাবাহিনী পারস্য সাম্রাজ্যে প্রবেশ করেছিল। সিকন্দরের ৫০ হাজার সেনাবাহিনীকে তখন বিশ্বের বৃহত্তম এবং সর্বাধিক প্রশিক্ষিত সেনাবাহিনীর মুখোমুখি হতে হয়েছিল।

এক অনুমান অনুসারে, রাজা তৃতীয় দারিয়সের সেনাবাহিনীর সংখ্যা ছিল ২৫ লক্ষ, যা তাঁর সমগ্র রাজ্যে ছড়িয়ে ছিল। এই সেনাবাহিনীর প্রাণকেন্দ্র হিসেবে পরিচিত দলকে ‘অমর সেনা’ বলা হত। এটি ১০০০০ সৈন্যের একটি সেরা রেজিমেন্ট ছিল।

এই সেরা রেজিমেন্টের সংখ্যা ১০ হাজারের কম হতে দেওয়া হতো না। যুদ্ধের সময় যখন এই দলের একজন সৈন্য নিহত হত, তখন তার স্থানে অন্য একজন যুদ্ধে অংশগ্রহণ করত এবং এইভাবে এই রেজিমেন্টের মোট সংখ্যা একই থাকত।

পারস্য সাম্রাজ্যের বিরুদ্ধে সিকন্দরের জয়:

পারস্য সাম্রাজ্যের বিশাল সামরিক শক্তি থাকা সত্ত্বেও, সিকন্দরের অত্যন্ত কার্যকর এবং বুদ্ধিমান রণকৌশলের কারণে পারস্য সাম্রাজ্য পরাজিত হয়েছিল।

ঐতিহাসিকদের মতে, পারস্য সাম্রাজ্যের পরাজয়ের অন্যতম কারণ হল এই সাম্রাজ্যের পতন আগেই শুরু হয়ে গিয়েছিল এবং খ্রিস্টপূর্ব পঞ্চম শতাব্দীতে গ্রিসের সঙ্গে যুদ্ধে একের পর এক পরাজয়ের ফলে এই সাম্রাজ্যের বিস্তারও বন্ধ হয়ে যায়।

খ্রিস্টপূর্ব ৩২৪ বিসি-তে সিকন্দর পারস্যের সুসা শহরে পৌঁছেছিলেন। তিনি পারস্য এবং মেসিডোনিয়ার জনগণকে একত্রিত করে এমন একটি জাতি তৈরি করতে চেয়েছিলেন যারা কেবল তাঁর বিশ্বস্ত হবে।

সিকন্দর তাঁর অনেক সেনাপতি এবং সেনানীদের পারস্যের রাজকন্যাদের বিয়ে করার নির্দেশ দিয়েছিলেন। এই উপলক্ষে একটি গণ বিবাহ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছিল। সিকন্দর নিজের জন্যও দুজন স্ত্রীকে বেছে নিয়েছিলেন।

সিকন্দরের ক্ষমতায় আসা, তাঁর বিজয় এবং আবার পতন, খুব অল্প সময়ের মধ্যেই এই সব কিছু ঘটেছিল।

রোমান ইতিহাসবিদ:

ডায়না স্পেন্সার বলেছিলেন, অনেক রোমান ঐতিহাসিকের মতে আলেকজান্ডার মাঝে মাঝে নেশা করে মাতাল হয়ে যেতেন। একবার তিনি রাতের খাবারের সময় নেশায় থাকা অবস্থায় তাঁর এক ঘনিষ্ঠ বন্ধুকে হত্যা করেছিলেন।

রোমান ঐতিহাসিকরা মদের নেশার কারণে তাঁর ক্রুদ্ধ ও অদ্ভুত আচরণের কয়েকটি ঘটনা সম্পর্কে লিখেছেন। তবে তাদের সত্যতা সম্পর্কেও প্রশ্ন রয়েছে।

সিকন্দরের হাতে নিহত তাঁর বন্ধুর নাম ছিল ক্লিটিয়াস, যিনি আলেকজান্ডার এবং তার পরিবারের খুব ঘনিষ্ঠ ছিলেন।তিনি প্রায়শই আন্তরিকতার সাথে সিকান্দারকে পরামর্শ দিতেন এবং প্রতিটি লড়াইয়ে তাঁর যোগ্য সহকারীর মতো ছিলেন। একদিন সিকন্দর অতিরিক্ত মদ্যপান করেছিলেন। সেদিন ক্লিটিয়াস সিকন্দরকে বলেছিলেন, “আপনার ব্যক্তিত্ব বদলে যাচ্ছে, আপনার নিজেকে নিয়ন্ত্রণ করা দরকার, আপনি পারস্যের লোকদের মতো হয়ে যাচ্ছেন এবং আপনাকে আর আমাদের মতো মনে হয় না।” ক্লিটিয়াস এই সব বলার জন্য ভুল সময় বেছে নিয়েছিল। ওই সময় সিকন্দর নিজের জায়গা থেকে উঠে এসে একটি বর্শা ক্লিটিয়াসের বুকে ঢুকিয়ে দিয়েছিলেন।

রহস্যজনক রোগ:

সিকন্দরের বিজয় এবং তাঁর ব্যক্তিত্ব মনোমুগ্ধকর হওয়ার কারণে প্রাচীন গ্রীকরা তাঁকে সাধারণ মানুষ নয়, দেবতা হিসাবে বিবেচনা করতেন। এমনকি সিকন্দরের নিজেরও বিশ্বাস ছিল যে তিনি দেবতা।

পারস্য সাম্রাজ্য দখলের পর সিকন্দরের সেনাবাহিনী পূর্ব দিকে অগ্রসর হতে থাকে এবং ভারত অবদি পৌঁছে যায়। এরপর সিকন্দর মেসিডোনিয়ায় ফিরে আসতে শুরু করেছিলেন, তবে স্বদেশে ফিরে যাওয়া তাঁর ভাগ্যে ছিল না।

খ্রিস্টপূর্ব ৩২৩ বিসি, ৩২ বছর বয়সে ব্যাবিলন (বর্তমান ইরাক)-এর এলাকায় পৌঁছানোর পর, একটি রহস্যজনক অসুখ তাঁর আকস্মিক মৃত্যু কারণ হয়।

কিছু ঐতিহাসিক মনে করেন, সিকন্দরের মৃত্যুর কারণ তাঁর ক্ষতগুলিতে হওয়া সংক্রমণ ছিল এবং কিছু ঐতিহাসিক মনে করেন তিনি ম্যালেরিয়ার কারণে মারা গিয়েছিলেন।

ভারতে যাওয়ার প্রয়োজনীয়তা:

পারস্য সাম্রাজ্য জয় করার পর ভারতে যাওয়ার প্রয়োজনীয়তা কেন অনুভব করলেন সিকন্দর? গ্রীক সংস্কৃতি বিভাগের অধ্যাপক পল কার্টিলেজ বলেছেন, এর অনেক কারণ ছিল। সিকন্দর দেখাতে চেয়েছিলেন যে তাঁর রাজ্যের সীমানা সেখানে পৌঁছে গিয়েছিল, যেখানে তাঁর পিতা দ্বিতীয় ফিলিপ পৌঁছাতে পারেননি।

সাম্রাজ্যের জন্য সীমানা প্রয়োজনীয় এবং সাম্রাজ্যগুলি তাদের সীমানা ছাড়িয়ে কী রয়েছে তা নিয়ে প্রতিনিয়ত উদ্বিগ্ন থাকে। এর একটি উদাহরণ হল রোমান সাম্রাজ্য। যখন ক্যান-এ-রুম (সিজার) ব্রিটেন আক্রমণ করেছিল। তখন আলেকজান্ডারও তার সীমানা প্রসারিত করার পরে, স্থায়ী সীমানা প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। এটি একটি প্রতিরক্ষামূলক ব্যাখ্যায় পরিণত হয়েছিল, যদিও রোমানিয় ব্যাখ্যায় সিকন্দরের মাথায় এমন বিচার ছিল “দৈব চরিত্র হারকিউলিস এবং ডায়োনিসাস সেখানে গেছেন, সুতরাং আমিও যাব।”

সিকন্দরের ধারাবাহিক বিজয়ের কারণে তাঁর আত্মবিশ্বাস বেড়ে গিয়েছিল। তিনি মনে করতেন, চেষ্টা করলে যতদূর ইচ্ছা ততদূর যেতে পারবেন। রিডিং বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্লাসিকের অধ্যাপিকা রিচেল মায়ার্স বলেছেন, মূল প্রশ্নটি হল, তাঁর জীবনের এই সময়ে, সিকন্দর কি বাস্তবের কঠিন সত্য থেকে দূরে সরে এসেছিলেন?

“তাঁর ভারত বিজয়ে তাকে স্থানীয় জনগণের বিরোধিতার পাশাপাশি তার সেনাবাহিনীর মধ্যে থেকেও তাঁকে বিরোধিতার মুখোমুখি হতে হয়েছিল। মধ্য এশিয়ায়, যেখানে তিনি দীর্ঘ তিন বছর অতিবাহিত করেছিলেন, তাঁর নিজের সৈন্যরা সেখানে অবস্থান করা অত্যন্ত বিরক্তিকর বলে মনে করছিল। ভারতে যুদ্ধের সময় যখন গুজব ছড়িয়েছিল যে সিকন্দর মারা গিয়েছেন, তখন মধ্য এশিয়ায় তাঁর সেনাবাহিনীতে একধরণের বিদ্রোহ শুরু হয়েছিল এবং তারা পিছনে সরে যাওয়ার চেষ্টা শুরু করে দিয়েছিল। তবে সিকান্দর কেবল আহত হয়েছিলেন।”

রিচেল মায়ার্স বলেছেন, সিকন্দরের নিরলস সামরিক অভিযানের সমাপ্তি এবং ফিরে আসার তিনটি প্রধান কারণ ছিল, তাঁর সেনাবাহিনীর মধ্যে বিরোধিতা, পণ্য সরবরাহে সমস্যা এবং এলাকার অসুবিধা ও আবহাওয়া।

কিছু ঐতিহাসিক মনে করেন, সিকন্দরের পরবর্তী লক্ষ্য ছিল আরব, কিন্তু সময় এবং পরিস্থিতি এর অনুমতি দেয়নি।

 

প্রথম পর্বের জন্য নিচে দেওয়া লিংকে ক্লিক করুন

Alexander the Great : ইতিহাসের অন্যতম সফল সম্রাট, মাত্র কুড়ি বছর বয়সে হয়েছিলেন রাজ মুকুটের অধিকারী 

https://wp.me/pd49ih-aC

Related Articles

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

Stay Connected

3,541FansLike
3,210FollowersFollow
2,141FollowersFollow
2,034SubscribersSubscribe
- Advertisement -

Latest Articles