Tuesday, April 16, 2024

আর্জেন্টিনা না ফ্রান্স! কাদের হাতে উঠবে ফিফা বিশ্বকাপ ২০২২?

লুসেইল স্টেডিয়ামে কাতার বিশ্বকাপের শেষ ডঙ্কা বেজে গেছে। মাত্র কিছু ঘণ্টার অপেক্ষা। একটা ট্রফি জেতাই নয়, জার্সির ওপর আরও একটা তারার খোঁজই বিশ্বকাপ। ফাইনালে মুখোমুখি আর্জেন্টিনা – ফ্রান্স। ভারতীয় সময় রাত ৮টা বেজে ৩০ মিনিটে শুরু হবে বিশ্বজয়ের শেষ লড়াই। ফাইনালে কার পাল্লা ভারী? জিততে পারে কে? জানতে হলে প্রতিবেদনের শেষ অব্দি লক্ষ্য রাখুন।

 

কাতার বিশ্বকাপ ফুটবলের ইতিহাসে গড়ে দিয়েছে একের পর এক নতুন রেকর্ড। ভেঙে দিয়েছে পুরোনো অতীত। ঘটিয়েছে একাধিক অঘটন। কাতার বিশ্বকাপে ছিটকে গিয়েছে ব্রাজিল, পর্তুগাল, ক্রোয়েশিয়া, ইংল্যান্ডের মতো একাধিক হাই ভোল্টেজ টিম ও সঙ্গে তাদের তারকারা। তবে সব বাধাকে উড়িয়ে ফাইনালে পৌঁছেছে আর্জেন্টিনা ও ফ্রান্স।

 

ফিফা কর্তৃপক্ষ চলতি বিশ্বকাপের ফাইনাল ম্যাচের দায়িত্ব তুলে দিয়েছে পোল্যান্ডের ৪১ বছর বয়সি রেফারি সাইমন মারচিনিয়াক এর হাতে । কাতারে আয়োজিত বিশ্ব ফুটবলের শ্রেষ্ঠ মঞ্চে অন্তিম ম্যাচটি পরিচালনা করবেন সাইমন । এছাড়া এই ম্যাচে তার সহকারি রেফারি হিসেবে থাকবেন পাওয়েল সোকোলনিচি এবং থমাস লিস্তকিউইচ। ম্যাচের চতুর্থ রেফারির দায়িত্বে থাকবেন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ইসমাইল এলফাৎ। বিশ্বকাপের সবথেকে আধুনিক সংযোজন VAR। এবার এই VAR এর দায়িত্বে থাকবেন পোল্যান্ডের আরও একজন রেফারি থমাস কাওয়াৎকাওসি।

 

স্বর্ণ বিশ্বকাপে আজ নিজের দেশে নাম খোদাই করতে মুখোমুখি হচ্ছে আর্জেন্টিনা ও ফ্রান্স। কোচ স্কালোনির ধূর্ত প্রতিভাকে ধরাশায়ী করতে প্রস্তুত দিদিয়ের দেশ্চাম্পস। প্রায় সমানে সমানে টক্কর চলবে আজ। একদিকে আর্জেন্টিনার নায়ক লিওনেল আন্দ্রেস মেসি তার জীবনের শেষ বিশ্বকাপের মঞ্চে প্রথমবারের মতো বিশ্বকাপের স্বাদ চাখতে মরিয়া, অন্যদিকে ২৩ বছরের এমবাপে কেরিয়ারের দ্বিতীয় বিশ্বকাপকে ঘরে তুলতে পূর্ণ প্রতিদ্বন্দ্বীরূপে দাড়িয়ে।

 

গত বিশ্বকাপে রাশিয়ার কাজান এরিনাতে মুখোমুখি হয়েছিল দুটি দল। সেবার রাউন্ড অফ সিক্সটিনের ম্যাচেই আর্জেন্টিনাকে চার গোলে পরাস্ত করে ফ্রান্স। এবং সবশেষে ক্রোয়েশিয়ার থেকে ছিনিয়ে নেয় দেশের হয়ে দ্বিতীয় বিশ্বকাপের খেতাব।

এখনও অব্দি ফুটবল বিশ্বকাপে আর্জেন্টিনা ও ফ্রান্স দুবার বিশ্বকাপ জয় করেছিল, সেই অর্থে দুটি দলের জার্সিতেই দুটি করে তারা রয়েছে। এবারের বিশ্বকাপ ফাইনাল আর্জেন্টিনা ও ফ্রান্সের কাছে নিজের জার্সিতে তিন নম্বর তারার জায়গা খুঁজে দেবে।

এই বিশ্বকাপ যদি ফ্রান্সের দখলে আসে তবে তারা বিশ্বব্যাপী তৃতীয় দেশ হবে যারা পরপর দুবার বিশ্ব চ্যাম্পিয়নের খেতাব জিতবে। এই খেতাব এতদিন ছিল ইতালি (১৯৩৪,১৯৩৮) এবং ব্রাজিলের১৯৫৮,১৯৬২) কাছে। অন্যদিকে যদি আর্জেন্টিনা হেরে যায় তাহলে তারা বিশ্বকাপের ইতিহাসে জার্মানীর পর সবথেকে দুর্ভাগ্যশালী দলে পরিণত হবে।

 

 

তবে এবার আর্জেন্টিনা দলে বদল এসেছে। খেলোয়াড়রা দিনের পর দিন নজর কেড়েছে নিজের প্রতিভায়। বর্তমানে আর্জেন্টিনা পুনরায় তার ছন্দে ফিরিয়ে এসেছে। কাতার বিশ্বকাপে সৌদি আরব ছিল একমাত্র দল যা আর্জেন্টিনাকে পরাস্ত করেছে। এরপর আর পেছনে ফিরে তাকাতে হয়নি মেসিদের। গোলকিপার মার্টিনেজ থেকে মেসি,আলভারেজ সকলেই চমক লাগিয়েছে ফাইনাল অবধি সম্পূর্ণ যাত্রাপথে। খেলোয়ারদের পাশাপাশি কোচ লিওনেল স্কালোনির বুদ্ধিদীপ্ত পরিকল্পনা আর্জেন্টিনাকে জেতার রাস্তা চওড়া করে দিয়েছে।

ফাইনাল মঞ্চে আর্জেন্টিনার হয়ে দ্বিতীয় বার ক্যাপ্টেন এর গুরু দায়িত্ব পালন করছেন লিওনেল মেসি।

অন্যদিকে ফ্রান্স ও তার তারকা ফুটবলারদের নিয়ে টুনিশিয়া ছাড়া একের পর এক দলকে অনায়াসে হারিয়ে ফাইনালে নিজের জায়গা পাকা করেছে। এই ফ্রান্সের দলেও বদল হয়েছে একাধিক গতবারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়নরাও নিজেদের নতুন ছাঁচে প্রস্তুত করেছে। বেঞ্জামা পোগবার মত খেলোয়াররা দলে নেই, তবুও ফ্রান্সবাহিনী কোনভাবেই তাদের অভাবকে স্পষ্ট হতে দেয়নি গোটা বিশ্বকাপে। ফ্রান্সের তরুণ এমবাপে এখন মেসির সাথে গোল্ডেন বুটের লড়াইয়ে সমান তালে পা মিলিয়েছে। সেই অর্থে আজকের ম্যাচ গোটা বিশ্বের ফুটবল প্রেমীর কাছে এক ঐতিহাসিক ম্যাচের চেহারা নিতে পারে।

 

 

ফাইনাল ম্যাচে আর্জেন্টিনার শেষ একাদশ কী হতে পারে সেই নিয়ে একবার চোখ বুলিয়ে নেব-

স্ক্যালোনি আর্জেন্টিনাকে সাজাতে পারেন ৪-৪-২ ফর্মেশনে। যেখানে গোলকিপার নিঃসন্দেহে দাঁড়াতে পারেন মার্টিনেজ, ডিফেন্সের দায়িত্ব থাকতে পারে রোমেরো,মলিনা,ওটামেন্ডি, আকুনা দের হাতে।

মিডফিল্ডারের ভূমিকা নেবে প্যারিডেস, ডি-পল, ফার্নান্দেজ, অ্যালিস্টার এবং ফরোয়ার্ডে থাকবেন

মেসি ও আলভারেজ।

 

বিশ্বকাপের ফাইনালে দিদিয়ের দেশ্চাম্পস ফ্রান্সকে তার পছন্দের ৪-৩-৩ ফরমেশনেই ব্যবহার করতে পারেন । যেখানে গোলকিপার ও ক্যাপ্টেন থাকবেন হুগো লরিস, ডিফেন্স এর ভূমিকায় থাকবে কন্দে, ভারান,উপমাকানো, এবং থিয়াগো হার্নান্ডেজ ।

মিডফিল্ডের ভূমিকায় থাকবে তাও চামেনি গ্রিজম্যান এবং ফোফানা বা রাবিও। এবং ফরোয়ার্ড এর ভূমিকায় দেখা যাবে ডেম্বেলে,জিরু ও এমবাপের জুটিকে।

 

কাতার বিশ্বকাপ এখনও অব্দি বিশ্বফুটবলের ইতিহাসে সবথেকে ঐতিহাসিক বিশ্বকাপের খেতাব জিতেছে। বিশ্বের সবথেকে জনপ্রিয় খেলোয়াড়রা দেশের জার্সি গায়ে চাপিয়ে কাতারের মাটিতেই শেষবারের মতন বিশ্বকাপের ফুটবলে পা রেখেছে। এরপর আর হয়তো বিশ্বকাপের মাঠে দেশের জার্সিতে রোনাল্ডো-মেসির দ্বন্দ্ব উপভোগ করতে পারবেনা দর্শকরা। শুধু রোনাল্ডো-মেশি’ই নয় কাতার বিশ্বকাপই ক্যারিয়ারের শেষ বিশ্বকাপ হতে পারে লুকা মড্রিচ, ডি মারিয়া, সহ একাধিক জনপ্রিয় ফুটবলারের কাছে।

কিছু ঘন্টা পেরোলেই বিশ্ববাসী পেয়ে যাবে তার নতুন বিশ্ব চ্যাম্পিয়নকে। একদিকে বিশ্ববাসীর নজর থাকবে শেষ বিশ্বকাপে মেসির ম্যাজিকের দিকে এবং ফ্রান্স চেষ্টা করবে তারকা খচিত দল নিয়ে দেশের হয়ে তৃতীয় বিশ্বকাপ নিজের নামে তুলে নেওয়ার দিকে।

স্বপ্নের উড়ানে পুরুলিয়ার আদিবাসী কন্যা গোলাপী বাস্কে, বল কেড়েছে শচীনের পা থেকে

Related Articles

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

Stay Connected

3,541FansLike
3,210FollowersFollow
2,141FollowersFollow
2,034SubscribersSubscribe
- Advertisement -

Latest Articles