Friday, February 23, 2024

Bhoot Police: টানটান রহস্য-রোমাঞ্চের জাল বুনতে পারল ‘ভূত পুলিশ’? পড়ুন ফিল্ম রিভিউ

আজ ওটিটি প্ল্যাটফর্ম ডিজনি প্লাস হটস্টারে (Disney+ Hotstar) মুক্তি পেল ‘ভূত পুলিশ’ (Bhoot Police)। ‘ভূত পুলিশ’ হল একটি হরর কমেডি ছবি। ছবির পরিচালক হলেন পবন কৃপলানি (Pawan Kripalani)।

ডিজনি প্লাস হটস্টারে মুক্তিপ্রাপ্ত ‘ভূত পুলিশ’ প্রায় দুই ঘন্টার ছবি। যেখানে দেখানো হয়েছে দুই ভাইকে, দুই ভাইয়ের মধ্যে বিভূতি বৈদ্যর চরিত্রে অভিনয় করেছেন সাইফ আলী খান (Saif Ali Khan) ও চিরঞ্জি বৈদ্যর চরিত্রে অভিনয় করেছেন অর্জুন কাপুর (Arjun Kapoor)। তাঁদের পিতা ছিলেন একজন তান্ত্রিক। দুই ভাই উত্তরাধিকার সূত্রে পাঁচ হাজার বছরের পুরোনো একটি বই পেয়েছে। এই বইতে ভূতকে বশীভূত করার, পরাজিত করার এবং তাদের এই পৃথিবী থেকে মুক্তি কিভাবে দেওয়া যায় সেই বিষয়ে লেখা রয়েছে। ছবিতে বিভূতি ও চিরঞ্জি হল তান্ত্রিক, যাদের ভূত তাড়ানোর জন্য ডাকা হয়। বিভূতি বিশ্বাস করে যে ভূত বলে কিছু হয় না। তবে চিরঞ্জির উত্তরাধিকার সূত্রে পাওয়া বইয়ের প্রতি পূর্ণ বিশ্বাস আছে।

একদিন ভূত মেলার ধর্মশালার নিকটবর্তী শিলাভাত এসেটের চা বাগানের মালকিন মায়া দুই ভাইকে খুঁজতে খুঁজতে তাদের কাছে উপস্থিত হয়। মায়ার চরিত্রে অভিনয় করেছেন ইয়ামি গৌতম (Yami Gautam)। বিভূতি -চিরঞ্জির বাবা ২৭ বছর আগে মায়ার ফার্ম হাউজকে একটি ভূতের হাত থেকে মুক্ত করেছিল, যেই ভূতকে স্থানীয় ভাষায় কচকান্দি বলা হয়, সেই ভূত আবার ফিরে এসেছে। দুই ভাই ফার্ম হাউজে গিয়ে জানতে পারে সেখানে মায়ার সঙ্গে তাঁর বোন কনিকাও থাকে। মায়া ভূতে বিশ্বাস করলেও, বিভূতির মতো কনিকাও ভূতে বিশ্বাস করে না। তাদের বাবা মারা যাওয়ার পর সম্পত্তিতে নিজের অংশ নিয়ে একটি আধুনিক জীবনযাপন করতে চায় কনিকা। কনিকার চরিত্রে অভিনয় করেছেন জ্যাকলিন ফার্নান্ডেজ (Jacqueline Fernandez)।

Bhoot Police

বিভূতি -চিরঞ্জি ভূত তাড়ানোর জন্য সেখানকার মানুষদের ‘গো কাচকান্দি গো … গো কাচকান্দি গো’ স্লোগান দেওয়ায়। ঠিক যেভাবে ভারতবাসীরা ‘গো করোনা গো’ এর স্লোগান দিয়েছিল। এই ছবিতে যেখানে বিভূতিকে সবকিছু নিয়ে মজা করতে দেখা যায়, সেখানে চিরঞ্জির চরিত্রটির মধ্যে রয়েছে গম্ভীর ভাব। সে বিশ্বাস করে তারা দুই ভাই কাল ভৈরব তান্ত্রিক পরিবারের সপ্তম প্রজন্ম। চিরঞ্জি বই পড়ে ভূতের অস্তিত্ব বর্ণনা করে বলেন, যখন মৃত ব্যক্তির শেষকৃত্য সম্পন্ন করা হয় না, তখন তার আত্মা দেহাবশেষের সঙ্গে যুক্ত হয়ে কচকান্দির রূপ নেয়। এই সংলাপের পর গল্পের বিভিন্ন দিক প্রকাশ পায়।

পুরো ব্যাপারটা আসলে কি? এটা কি সত্যিই কচকান্দি, না সবটাই মিথ্যা? যদি মিথ্যা হয় তাহলে আসল গল্প কি? সত্যিই কি ভূত আছে? যদি ভূত সত্য হয়, তাহলে বিভূতি-চিরঞ্জি কি কিছু করতে পারবে? এইসব প্রশ্নের উত্তর জানতে দেখে নিন ‘ভূত পুলিশ’।

Related Articles

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

Stay Connected

3,541FansLike
3,210FollowersFollow
2,141FollowersFollow
2,034SubscribersSubscribe
- Advertisement -

Latest Articles